Saturday, April 3, 2021

চর্মরােগের লক্ষন সহ সমাধান - Dermatological Diseases, Skin disease

 


হােমিওপ্যাথিতে চর্মরােগের চিকিৎসার জন্য আলাদা কোন শর্টকাট রাস্তা নাই। রােগের নাম নয় বরং রোগের লক্ষণ এবং রােগের কারণ অনুযায়ী ঔষধ নির্বাচন করে প্রয়ােগ করতে হবে। তাহলেই আরােগ্যের আশা করতে পারেন। হ্যা, যে-কোন হােমিও ঔষধেই যে-কোন চর্মরােগ নিরাময় করা সম্ভব যদি সেই ঔষধের সাথে রােগটির লক্ষণ মিলে যায়। তারপরও নীচে কয়েকটি হােমিও ঔষধের ব্যবহার বর্ণনা করা হলাে -


Thuja Occidentalis : একটু মারাত্মক ভয়ঙ্কর ধরনের অধিকাংশ চর্মরােগের একটি মূল কারণ হলাে টিকা (বিসিজি, ডিপিটি, এটিএস, পােলিও, হেপাটাইটিস, এটিএস ইত্যাদি) নেওয়া। কাজেই কোন টিকা নেওয়ার দুয়েক মাস থেকে দুয়েক বছরের মধ্যে কোন চর্মরােগ দেখা দিলে প্রথমেই থুজা নামক ঔষধটি উচ্চ শক্তিতে এক মাত্রা খেয়ে নিতে হবে। বিশেষ করে খুসকির সাথে যাদের শরীরে আঁচিলও আছে, তাদের প্রথমেই সপ্তাহে একমাত্রা করে কয়েক মাত্রা খুজা খেয়ে নেওয়া উচিত।


Arsenicum Album : যে-কোন চর্মরােগের সাথে যদি অস্থিরতা, জ্বালাপােড়া, পেটের অসুখ, রাতের বেলা বৃদ্ধি ইত্যাদি লক্ষণ থাকলে আর্সেনিক খেতে হবে।


Kali Sulphuricum : ক্যালি সালফ খুসকির মতাে চামড়া ওঠা জাতীয় রােগের একটি শ্রেষ্ট ঔষধ। ক্যালি সালফের আরেকটি প্রধান লক্ষণ হলাে হলুদ রঙ। যদি পূরে রঙ, প্রস্রাবের রঙ অথবা কফের রঙ হলুদ হয়, তবে যে-কোন রােগে ক্যালি সালফ প্রয়ােগে ভাল ফল পাবেন।


sepia : তলপেটে বল বা চাকার মতাে কিছু একটা আছে মনে হয়, রােগী তলপেটের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ পায়খানার রাস্তা দিয়ে বেরিয়ে যাবে এই ভয়ে দুই পা দিয়ে চেপে ধরে রাখে, সর্বদা শীতে কাঁপতে থাকে, দুধ সহ্য হয় না, ঘনঘন গর্ভপাত হয়, স্বামী-সন্তান-চাকরি- বাকরির প্রতি আকর্ষণ কমে যায় ইত্যাদি লক্ষণ থাকলে যে-কোন চর্মরােগে সিপিয়া খেতে পারেন।


sulphur : চর্মরােগের একটি সেরা ঔষধ হলাে সালফার যদি তাতে অত্যধিক চুলকানী। এবং জ্বালাপােড়া থাকে। এই কারণে রোগীর মধ্যে অন্য কোন ঔষধের লক্ষণ না থাকলে অবশ্যই তার চিকিৎসা প্রথমে সালফার দিয়ে শুরু করা উচিত। যাদের চর্মরােগ। বেশী বেশী হয়, তাদেরকে প্রথমে অবশ্যই দুয়েক মাত্রা সালফার খাওয়াতেই হবে এবং সালফার তার ভেতর থেকে সকল চর্মরােগ বের করে আনবে। পক্ষান্তরে যাঁদের চর্মরােগ বেশী বেশী হয় এবং শীতকাতর তাদেরকে প্রথমে খাওয়াতে হবে সােরিনাম (Psorinum)। সালফারের প্রধান প্রধান লক্ষণ হলাে সকাল ১১টার দিকে ভীষণ খিদে পাওয়া, গােসল করা অপছন্দ করে, গরম লাগে বেশী, শরীরে চুলকানী বেশী, হাতের তালু-পায়ের তালু-মাথার তালুতে জ্বালাপােড়া, মাথা গরম কিন্তু পা ঠান্ডা, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার দিকে কোন খেয়াল নাই, রােগ বিছানার গরমে বৃদ্ধি পায়, ছেড়া-নােংরা তেনা দেখেও আনন্দিত হয় ইত্যাদি ইত্যাদি।



Mezereum : মেজেরিয়ামের প্রধান প্রধান লক্ষণ হলাে মাথার থেকে মােটা মােটা চামড়ার মতাে চলটা উঠতে থাকে, এগুলাের নীচে আবার পুঁজ জমে থাকে, চুল আঠা দিয়ে জট লেগে থাকে, পূজ থেকে এক সময় দুর্গন্ধ ছড়াতে থাকে, চুলকানীর জন্য রাতের ঘুম হারাম হয়ে যায় ইত্যাদি।


Graphites : গ্র্যাফাইটিসের প্রধান প্রধান লক্ষণ হলাে অলসতা, দিনদিন কেবল মােটা হওয়া, মাসিকের রক্তক্ষরণ খুবই কম হওয়া, চর্মরােগ বেশী হওয়া এবং তা থেকে মধুর মতাে আঠালাে তরল পদার্থ বের হওয়া, ঘনঘন মাথাব্যথা হওয়া, নাক থেকে রক্তক্ষরণ হওয়া, অলাে অসহ্য লাগা ইত্যাদি। উপরের লক্ষণগুলাের দু'তিনটিও কোন রােগীর মধ্যে থাকে, তবে গ্রাফাইটিস তার চর্মরােগ সারিয়ে দেবে।


Hepar Sulph : হিপার সালফের প্রধান প্রধান লক্ষণ হলাে এরা সাংঘাতিক সেনসেটিভ (over- sensitiveness), এতই সেনসেটিভ যে রােগাক্রান্ত স্থানে সামান্য স্পর্শও সহ্য করতে পারে না, এমনকি কাপড়ের স্পর্শও না। কেবল মানুষের বা কাপড়ের স্পর্শ নয়, এমনকি ঠান্ডা বাতাসের স্পর্শও সহ্য করতে পারে না। সাথে সাথে শব্দ (গােলমাল) এবং গন্ধও সহ্য করতে পারে না। হিপারের শুধু শরীরই সেনসেটিভ নয়, সাথে সাথে মনও সেনসেটিভ। অর্থাৎ মেজাজ খুবই খিটখিটে। কাটা-ছেড়া-পােড়া ইত্যাদি ঘা/ক্ষত শুকাতে হিপার বেশী ব্যবহৃত হয়ে থাকে। তবে মনে রাখতে হবে যে, হিপারের পূজ হয় পাতলা। যেখানে আঠালাে পুঁজ বা কষ বের হয়, সেখানে হিপারের বদলে ক্যালি বাইক্রোম (Kali Bichromicum) ব্যবহার করতে হবে। সাধারণত ফোড়া পাকাতে নিম্নশক্তি এবং ফোড়া সারাতে উচ্চশক্তি ব্যবহার করতে হয়।


Natrum Muriaticum : মুখ সাদাটে এবং ফোলা ফোলা, বেশী বেশী লবণ বা লবণযুক্ত খাবার খায়, কথা শিখতে বা পড়াশােনা শিখতে দেরী হয়, ঋতুস্রাবে রক্তক্ষরণ হয় খুবই অল্প, পা মােটা কিন্তু ঘড়ি চিকন, মানসিক আঘাত পাওয়ার পর কোন চমরােগ হওয়া ইত্যাদি ইত্যাদি লক্ষণ থাকলে যে-কোন চর্মরােগে নেট্রাম মিউর খেতে পারেন। Croton Tiglium : ক্রোটন টিগ চর্মরােগের একটি সেরা ঔষধ। ইহার প্রধান লক্ষণ হলাে চর্মরােগে প্রচুর চুলকানি থাকে কিন্তু জোরে চুলকানাে রােগী সহ্য করতে পারে না। কেননা তাতে আরাম না বরং সাংঘাতিক ব্যথা পাওয়া যায়। পক্ষান্তরে হালকা ভাবে চুলকালে অথবা মালিশ করলে রােগী আরাম পায়।


Rhus Toxicodendron : রাস টক্সের প্রধান প্রধান লক্ষণ হলাে প্রচণ্ড অস্থিরতা, রােগী এতই অস্থিতায় ভােগে যে এক পজিশনে বেশীক্ষণ স্থির থাকতে পারে না, রােগীর শীতভাব এমন বেশী যে তার মনে হয় কেউ যেন বালতি দিয়ে তার গায়ে ঠান্ডা পানি ঢালতেছে, নড়াচড়া করলে (অথবা টিপে দিলে) তার ভালাে লাগে অর্থাৎ রােগের কষ্ট কমে যায়, স্বপ্ন দেখে যেন খুব পরিশ্রমের কাজ করতেছে। পাশের চিত্রের ন্যায় লালচে এবং ফোস্কা জাতীয় চর্মরােগের জন্য রাসটক্স এক নাম্বার ঔষধ।



Arnica Montana যে-কোন ধরনের আঘাত, : থেতলানাে, মচকানাে, মােচড়ানাে, ঘুষি, লাঠির আঘাত বা উপর থেকে পড়ার কারণে কোন চর্মরােগ হলে আর্নিকা খেতে হবে। আক্রান্ত স্থানে এমন তীব্র ব্যথা থাকে যে, রােগী কাউকে তার দিকে আসতে দেখলেই সে ভয় পেয়ে যায় (কারণ ধাক্কা লাগলে ব্যথার চোটে তার প্রাণ বেরিয়ে যাবে)। উপরের লক্ষণগুলার কোনটি থাকলে যে-কোন রােগে আর্নিকা প্রয়োগ করতে পারেন।


Mercurius Solubilis : মার্ক সল ঔষধটির প্রধান  প্রধান লক্ষণ হলাে প্রচুর ঘাম হয় কিন্তু রােগী আরাম পায় না, ঘামে দুর্গন্ধ বা মিষ্টি গন্ধ থাকে, ঘুমের মধ্যে মুখ থেকে লালা ঝরে, পায়খানা করার সময় কোথানি, অধিকাংশ রােগ রাতের বেলা বেড়ে যায়, রােগী ঠান্ডা পানির জন্য পাগল ইত্যাদি। ঘামের কারণে যাদের কাপড়ে হলুদ দাগ পড়ে যায়, তাদের যে-কোন রােগে মার্ক সল প্রয়ােগ করতে পারেন। মার্ক সল যেহেতু এন্টি সিফিলিটিক ঔষধ তাই সিফিলিস রােগী বা তাদের স্ত্রী পুত্র-কন্যাদের যে-কোন রােগে এটি ভাল কাজ করে।


Cantharis : জ্বালা-পােড়া এবং ছিড়ে ফেলার মতাে ব্যথা হলাে ক্যান্থারিসের প্রধান লক্ষণ। ভীষণ জ্বালাপােড়া থাকলে যে-কোন চর্মরােগে ক্যান্থারিস ব্যবহার করতে পারেন। এটি জলাতঙ্ক রােগের একটি শ্রেষ্ট ঔষধ। এটি যৌন উত্তেজনা বৃদ্ধি করে থাকে ভীষণভাবে। কোন জায়গা পুড়ে গেলে একই সাথে খাওয়ান এবং পানির সাথে মিশিয়ে পােড়া জায়গায় লাগান। এটি পেটের মরা বাচ্চা, গর্ভফুল বের করে দিতে পারে এবং বন্ধ্যাত্ব নির্মূল করতে পারে।

0 Comments: