Friday, April 2, 2021

হাঁপানি রোগ ভাল করার জন্য সবচাইতে ভাল হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা - Asthma, bronchial asthma, allergic asthma, Infantile asthma, Bronchitis

 


হাঁপানি হলাে কিছুদিন পরপর বারে বারে আসা শ্বাসকষ্ট্রের নাম যাতে শ্বাসনালী চিকন হওয়ার কারণে শ্বাস নেওয়ার অথবা ছাড়ার সময় হিস হিস শব্দ হয়। হাঁপানির সাথে কখনও কখনও কাশি থাকে এবং আঠালাে কফ উঠে। হাঁপানির আক্রমণ যখন তীব্র হয়, তখন লক্ষণ অনুযায়ী ঔষধ খেয়ে জীবন বাঁচাতে হবে। তারপর যখন হাঁপানির আক্রমণ চলে যায়, তখন হাঁপানির কারণ অনুযায়ী মূল ঔষধ খেয়ে তাকে স্থায়ীভাবে নির্মূল করতে হবে। হাঁপানিকে স্থায়ীভাবে নিরাময় করা অন্যান্য চিকিৎসা পদ্ধতিতে অসম্ভব হলেও একজন সুদক্ষ হােমিও চিকিৎসকের পক্ষে অসম্ভব নয়। হাঁপানির নাম (bronchial asthma, allergic asthma, Infantile asthma, exercise induced asthma, Bronchitis) যা-ই হােক না কেন, ঔষধ খেতে হবে লক্ষণ অনুসারে। হাঁপানিকে স্থায়ীভাবে সারানাের ক্ষমতা পৃথিবীতে একমাত্র হােমিও ঔষধেরই আছে। হ্যা, ঔষধ বা অন্য যে-সব জিনিস বা খাবারের কারণে হাঁপানি বেড়ে যায়, সেগুলাে বাদ দিয়ে চলতে হবে। যেমন - বেশী পরিশ্রম, আবেগপ্রবন / উত্তেজিত হওয়া, নির্দিষ্ট কোন একটি ঔষধ (যেমন- বাতের ঔষধ), বিড়াল-কুকুরের পশম, ফুলের রেণু, গরুর মাংস, ইলিশ মাছ, চিংড়ি মাছ, কচু শাক, মিষ্টি কুমড়া, বেগুন, ডাল ইত্যাদি ইত্যাদি।


প্রথমত হাঁপানির সাথে যদি কাশি থাকে, তবে "কাশি" অধ্যায়ে বর্ণিত লক্ষণ অনুযায়ী ঔষধ খেয়ে সেটি নিরাময় করুন। তারপর হাঁপানির তীব্রতা কমে আসলে স্থায়ীভাবে সারানাের জন্য প্রায়ই নীচের ঔষধগুলাে খাওয়ানাে লাগতে পারে।


Arsenicum lodatum : শীতকাতর রােগী কিন্তু গরমে হাঁপানীর কষ্ট বৃদ্ধি পায়, লক্ষণে আর্সেনিকাম আয়ােডেটাম খেতে হবে।


Causticum : হাঁপানী রােগী একমাত্র দাড়িয়ে থাকলে আরাম পায়, লক্ষণে কষ্টিকাম প্রযাজ্য।


Psorinum : শুয়ে থাকলে এবং দুই হাত ছড়িয়ে রাখলে হাঁপানীর কষ্ট কমে এবং হাত বুকের কাছে অনিলে কষ্ট বৃদ্ধি পায়, লক্ষণে সােরিনাম খেতে হবে।


Pothos Foetida : ধুলােবালির কারণে যদি হাঁপানীর আক্রমণ হয় অথবা হাঁপানীর উৎপাত বৃদ্ধি পায়, তবে চোখ বুজে পােগােজ খেতে পারেন।


Aconitum Napellus : হঠাৎ হাঁপানীর আক্রমণের অল্পক্ষণের মধ্যেই যখন সেটি ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করে, তখন খাওয়াতে পারলে একোনাইট কাজ করবে যাদুর মতাে। হাঁপানীর আক্রমণ এত মারাত্মক হয় যে তাতে রােগী মৃত্যুর ভয়ে শংকিত হয়ে পড়ে। Kali Carbonicum - ক্যালি কারব-এর প্রধান লক্ষণ হলাে হাঁপানীর আক্রমণ ভাের ৩টা থেকে ৫টার সময় বৃদ্ধি পায়, রােগী হুইল চেয়ারে বসে দোল খেলে হাঁপানীর কষ্ট কমে যায় ইত্যাদি ইত্যাদি।



Belladonna : যদি শরীরে বা আক্রান্ত স্থানে উত্তাপ বেশী থাকে, যদি আক্রান্ত স্থান লাল হয়ে যায় (যেমন- মাথা ব্যথার সময় মুখ লাল হওয়া), শরীরে জ্বালা- পােড়াভাব থাকে ইত্যাদি লক্ষণ থাকলে বেলেডােনা প্রয়ােগ করতে পারেন। বেলেডােনা সাধারণত মােটাসােটা, শক্তিশালী, ফুর্তিবাজ রােগীদের বেলায় ভালাে কাজ করে।


Aspidosperma : সাধারণত শ্বাসকষ্টের সময় যদি মুখ লাল হয়ে যায় অথবা নীল হয়ে যায়, তবে তাতে এসপিডসপারমা উপকারী। আবার শ্বাসকষ্ট যদি কোন হৃদরােগের কারণে হয় (যেমন- হৃদপিন্ড বড় হয়ে যাওয়া, হৃদপিন্ডে চর্বি জমা, হার্টের ভাল্বের সমস্যা), তবে তাতেও ইহা প্রয়ােগ করতে পারেন।


Bacillinum : অতীতে যাদের যক্ষ্মা হয়েছিল অথবা যাদের পিতা-মাতা-ভাই-বােন বা স্বামী-স্ত্রীর যক্ষ্মা বা হাঁপানি ছিল, তাদেরকে বেসিলিনাম না খাইয়ে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই হাঁপানি স্থায়ীভাবে সারানো যায় না। বেসিলিনামের প্রধান প্রধান লক্ষণ হলাে ঘনঘন সর্দি লাগা, ভীষণ ক্ষুধা, প্রচুর খায় কিন্তু তারপরও দিনদিন শুকিয়ে যায়, ভ্রমণ করতে খুবই পছন্দ করে, ভােলা বাতাসের জন্য পাগল, এক জায়গায় বেশী ক্ষণ থাকতে - এক কাজ বেশী ক্ষণ করতে ভালাে লাগে না, রাতের বেলা হাঁপানি বেড়ে যায়। এটি ২০০, ১০০০ এবং ১০,০০০ শক্তিতে একমাস পরপর মােট ৩ মাত্রা খাওয়া উচিত।


Medorrhinum অতীতে যাদের গনােরিয়া (Gonorrhoea) হয়েছিল অথবা যাদের পিতা-মাতা- স্বামী-স্ত্রীর গনােরিয়া ছিল, তাদেরকে মেডােরিনাম না খাইয়ে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই হাঁপানি স্থায়ীভাবে সারানো যায় না। মেডােরিনামের প্রধান লক্ষণ হলাে পেট নীচের দিকে এবং পিঠ উপরের দিকে দিয়ে শুইলে (নামাযের সেজদার পজিশনে) এবং জিহ্বা বের করে রাখলে হাঁপানি কমে এবং এরা গরম সহ্য করতে পারে না। এটি ২০০, ১০০০ এবং ১০,০০০ শক্তিতে একমাস পরপর মােট ৩ মাত্রা খাওয়া উচিত।

Syphilinum : অতীতে যাদের সিফিলিস হয়েছিল। অথবা যাদের পিতা-মাতা-স্বামী-স্ত্রীর সিফিলিস ছিল, তাদেরকে সিফিলিনাম না খাইয়ে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই হাঁপানি স্থায়ীভাবে সারানাে যায় না। সিফিলিনামের প্রধান প্রধান লক্ষণ হলাে রাতের বেলা সকল রােগ বৃদ্ধি পায়, বাতের সমস্যা লেগেই থাকে, দাঁত দ্রুত ক্ষয় হয়ে যায়, মদ বা অন্যান্য মাদক দ্রব্যের প্রতি আসক্তি, স্মরণশক্তি দুর্বল, বেশী বেশী হাত ধােয়ার অভ্যাস, দুরারােগ্য কোষ্টকাঠিন্য ইত্যাদি। এটি ২০০, ১০০০ এবং ১০,০০০ শক্তিতে একমাস পরপর মাট ৩ মাত্রা খাওয়া উচিত।


Natrum Sulphuricum : যে-সব হাঁপানি ভিজা আবহাওয়ার সময় অথবা বর্ষাকালে বেড়ে যায়, তাতে নেট্রাম সালফ প্রযােজ্য। এটি ৩০ শক্তি থেকে শুরু করে ক্রমান্বয়ে শক্তি বাড়িয়ে খাওয়া উচিত। Magnasium Sulphuricum : যে-সব শিশু বা যুবক-যুবতী নিজেদেরকে পরিত্যক্ত অপ্রয়ােজনীয় অনাকাঙ্খিত (rejected { deserted) মনে করে, তাদের যে-কোন রােগে ম্যাগ সালফ প্রয়ােগ করতে হবে। যেমন - ইয়াতীম (orphan) শিশু, যেই শিশুকে তার মাতা গর্ভপাত ( abortion attempted) করতে চেয়েছিলেন, ধর্ষিতা যুবতী (raped) ইত্যাদি ইত্যাদি।


Thuja Occidentalis : for (Vaccines) হলাে হাঁপানি হওয়ার একটি সবচেয়ে বড় কারণ। যেমন বিসিজি, ডিপিটি, হাম, পােলিও, এটিএস, হেপাটাইটিস ইত্যাদি ইত্যাদি। টিকা নেওয়ার কারণে হাঁপানি হলে সেক্ষেত্রে থুজা একটি শ্রেষ্ট ঔষধ। সুতরাং যে-সব হাঁপানি রােগী অতীতে এসব অথবা অন্য কোন টিকা নিয়েছেন, তাদেরকে অবশ্যই ৫/৬ মাত্রা খুজা খাওয়াতে হবে। যারা শীত সত্ব করতে পারে না এবং উপর থেকে পড়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখে, তাদের ক্ষেত্রে থুজা প্রযােজ্য। বদ্ধমুল ধারনা (fixed ideas) লক্ষণ থাকলে থুজা প্রয়ােগ করতে হবে। যেমন - একজন রােগী দুয়েক চাপ ইনহেলার নিলে উপকার পায়, এমনকি ইনহেলারের ভেতরে কোন ঔষধ না থাকলেও উপকার হয়। এটি ৩০ অথবা ২০০ শক্তিতে দশ দিন পরপর খাওয়া উচিত।

0 Comments: