Thursday, April 1, 2021

মুখের ঘা হলে কি করনিও - Aphthous, Stomatitis, Mouth Ulcer

 


মুখের ভেতরে গালের মধ্যে বা জিহ্বার উপরে-নীচে ছােট ছােট ব্যথাযুক্ত ঘা হয়। একবার হয়, সেরে যায়, কিছুদিন পর আবার হয়। এভাবে দীর্ঘদিন যাবৎ চলতে থাকে। এগুলাের কারণে খাওয়া-দাওয়া করা খুবই কষ্টদায়ক হয়ে পড়ে।


Natrum Muriaticum ; ক্লার্কের মতে, নেট্রাম মিউর মুখের ঘায়ের একটি শ্রেষ্ট ঔষধ। এদের জিহ্বা থাকে মানচিত্রের মতাে খাঁজ কাটা এবং স্থানে স্থানে লাল দাগ বিশিষ্ট।


Borax : বােরাক্স হলাে মুখের ঘায়ের এক নাম্বার ঔষধ। ইহার প্রধান লক্ষণ হলাে নীচে নামতে ভয় পায়। শিশুকে হাত দিয়ে উপরে ধরে তারপর আস্তে আস্তে নীচে নামান, দেখবেন ভয় পায় কিনা। যদি ভয় পায় তবে কেবল মুখের ঘা নয়, শিশুর যে-কোন শারীরিক-মানসিক রােগই বােরাক্সে সেরে যাবে।

Sanicula; মুখের ঘায়ে সেনিকিউলার লক্ষণ হলাে


তাতে গরম পানি খেয়ে মুখ পুড়ে যাওয়ার মতাে জ্বালা পােড়া ভাব থাকে এবং গরম কোন খাবার-পানি খেলে খুবই অসুবিধা হয়। যাদের শারীরিক অবস্থা খারাপ এমনকি গ্রীষ্মকালেও যাদের হাত-পা ঠান্ডা থাকে, তাদের ক্ষেত্রে এটি ভালাে কাজ করে।


Hydrastis Canadensis : হাইড্রাসটিস মুখের ঘায়ের আরেকটি শ্রেষ্ট ঔষধ বিশেষত যাদের মুখের, চোখের বা ঘায়ের। রং হলদেটে থাকে অর্থাৎ জন্ডিসের ভাব আছে।


Hydrocotyle Asiatica, হাইড্রোকোটাইল আরেকটি ভালাে ঔষধ বিশেষত যাদের নিজেদের বা বংশগত সিফিলিসের ইতিহাস আছে।


Arsenicum Album : মুখের ঘায়ের রঙ যদি নীলচে রঙের হয় এবং তাতে জ্বালা-পােড়া ভাব থাকে, তবে আর্সেনিক তার উপযুক্ত ঔষধ।

0 Comments: